Breaking News

এ বার দেশেই কোভিড টিকা, গবেষণায় হাত মেলাল আইসিএমআর, ভারত বায়োটেক

ভারতেই কোভিড-১৯-এর টিকা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বানানোর প্রয়াস শুরু হল। সেই লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় গবেষণার জন্য ‘ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)’ হাত মেলাল হায়দরাবাদের সংস্থা ‘ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের (বিবিআইএল)’ সঙ্গে। শনিবার আইসিএমআর-এর তরফে এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়েছে।এও জানানো হয়েছে, আইসিএমআর-এর অধীনে থাকা পুণের ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি (এনআইভি)’র গবেষণাগারে বানানো কোভিড-১৯ ভাইরাসের স্ট্রেন তুলে দেওয়া হয়েছে বিবিআইএলের হাতে। টিকা বানানোর গবেষণার জন্য।

ভারতে কোভিড-১৯-এর ওই টিকা বানানো হচ্ছে একেবারেই দেশীয় প্রযুক্তিতে। যাতে অনেক কম খরচে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা আমজনতার কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়।আইসিএমআর-এর তরফে জানানো হয়েছে, টিকা নিয়ে গবেষণা ও টিকা বানানোর জন্য বিবিআইএল-কে সব রকম ভাবে সাহায্য করবে আইসিএমআর এবং এনআইভি। গবেষণার জন্য প্রয়োজনীয় রাসায়নিকের দ্রুত জোগানে যাতে কোনও ব্যাঘাত না ঘটে, সে দিকেও নজর রাখা হবে। সম্ভাব্য টিকা নিয়ে প্রাণী ও মানুষের উপর পরীক্ষানিরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সরকারি অনুমোদনেও দেরি হবে না।

বিবিআইএল-এর চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর কৃষ্ণা এল্লা একটি বিবৃতিতে বলেছেন, ‘‘আইসিএমআর এবং এনআইভি-র সঙ্গে এই প্রকল্পে যুক্ত হতে পেরে আমরা গর্বিত। এই অতিমারির বিরুদ্ধে দেশের লড়াইয়ের অঙ্গ হিসেবে এই প্রকল্পকে সফল করে তুলতে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব।’’কোভিড-১৯-এর টিকা বানানোর গবেষণায় বিবিআইএল যে প্রস্তুত হচ্ছে, তার আভাস অবশ্য আগেই মিলেছিল।

কোভিড-১৯-এর টিকা বানানোর গবেষণার জন্য বিবিআইএল-কে অর্থসাহায্য দেওয়ার ঘোষণা করেছিল কেন্দ্রীয় বায়োটেকনোলজি মন্ত্রক, গত ২০ এপ্রিল। তার আগে ৩ এপ্রিল বিবিআইএলের তরফে জানানো হয়েছিল, ফ্লু-এর টিকার ভিত্তিতে তারা কোভিড-১৯-এর একটি টিকা বানানোর গবেষণা চালাচ্ছে। ‘কোরো-ফ্লু’ নামে সেই টিকা নাক দিয়ে নেওয়া যাবে। এক ড্রপ করে।

Sharing is caring!

About admin

Check Also

দুর্গম রাস্তায় দৈনিক 30 কিমি হেঁটে আজ 15 বছর ধরে পোস্টম্যানের সার্ভিস দিচ্ছেন এই বৃদ্ধ, জনগণ তার ভারতরত্নের দাবি করেছেন

কেউ একজন বলেছিলেন নিঃশব্দে কাজ করে যাও সাফল্য ঠিক আসবে। ডি সিভান এই কথাটির জীবন্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *